রাজনীতি

দুর্নীতির মাধ্যমে অর্থনীতিকে ধ্বংস করা হয়েছে: ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার:
বাংলাদেশের অর্থনীতিকে দুর্নীতির মাধ্যমে প্রায় ধ্বংস করে ফেলা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সোমবার রাজধানীর চন্দ্রিমা উদ্যানে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সমাধিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ শেষে তিনি এ মন্তব্য করেন। এর আগে জাসাসের পূর্ণাঙ্গ কমিটির নেতাকর্মীদেরকে নিয়ে শহীদ জিয়ার সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান ফখরুল।

ফখরুল বলেন, আজকে আমরা দেখতে পাচ্ছি, শুদ্ধি অভিযানের নামে শুধু ছোটখাটো যারা দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত তাদেরকেই গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। যারা বড় রুই-কাতলা, যারা সমাজকে গ্রাস করছে, তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। আর আজকে বাংলাদেশের অর্থনীতিকে দুর্নীতির মাধ্যমে প্রায় ধ্বংস করে ফেলা হয়েছে।

আজকে সারাবিশ্বে আন্তর্জাতিক দুর্নীতি দমন তারিখ ঘোষণা করা হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি এই কথাটা বলতে চাই, আজকে সারাবিশ্বে আন্তর্জাতিক দুর্নীতি দমনের সাথে সাথে বাংলাদেশে যে দুর্নীতি সর্বগ্রাসী হচ্ছে- তার বিরুদ্ধে জনগণের রুখে দাঁড়ানো দরকার।

ফখরুল বলেন, দুর্নীতি শুধু আর্থিক দুর্নীতি হয় না। সামাজিক ও রাজনৈতিক দুর্নীতি সবচেয়ে বড় দুর্নীতির মধ্যে একটি। আর আমাদের দেশে সমস্ত দুর্নীতি শুরু হয়েছে। আজকে আর্থিক দুর্নীতি এমন পর্যায়ে চলে গেছে যে, সেখানে দুদকের চেয়ারম্যান ও সংসদ সদস্য।

আগামী বৃহস্পতিবার খালেদা জিয়ার জামিন শুনানীর বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা আগে দেখি কি হয়।

বিএনপি আন্দোলন-সংগ্রামে ব্যর্থ হয়ে বিদেশের কাছে নালিশ করছে- আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এই বক্তব্যের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে বিএনপি মহাসচিব বলেন, তাদের এই কথাগুলো বলা ছাড়া কোন উপায় নেই। কারণ তাদের জনগণের কাছে কোন জায়াগা নেই। বাংলাদেশের রাজনীতিতে তাদের আর কোন ভিত্তি নেই। তারা জোর করে রাষ্ট্র ক্ষমতা দখল করে আছেন। আর এসব কথা না বললে মিডিয়াতেও টিকে থাকতে পারবেন না।

ফখরুল বলেন, আমরা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানিয়ে শপথ নিয়েছে, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও গণতন্ত্রের মুক্তির জন্য আমাদের যে সংগ্রাম, সেই সংগ্রাম অব্যাহত রাখবো।

এসময় জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থার সভাপতি মামুন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক নায়ক হেলাল খান, সহ-সভাপতি জাহেদুল আলম হিটোসহ জাসাসের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

 

চিত্রদেশ//এস//

আরও

Leave a Reply

Back to top button