স্বাস্থ্য কথা

হাড় ভালো রাখতে কী খাবেন, কী খাবেন না

স্বাস্থ্যকথা ডেস্ক:

বাংলাদেশকে আরও ২৫০ মিলিয়ন ডলার তথা ২ হাজার ১২২ কোটি ৬৮ লাখ ৯৭ হাজার ৫০০ টাকা (৮৪ টাকা ৯১ পয়সা করে) ঋণ দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক। বিষয়টি প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যে নিশ্চিত করেছেন অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ।

রোববার (২১ জুন) সরকারের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন এবং বাংলাদেশে বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্সি টেমবন এ বিষয়ে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেন।

মূলত পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জন্য কাজের সুযোগ সৃষ্টিসহ বিনিয়োগ, ব্যবসার পরিবেশের আধুনিকায়ন, কর্মীদের সুরক্ষা ও সক্ষমতা জোরদারের লক্ষ্যে এই ঋণ দিচ্ছে বিশ্ব ব্যাংক।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এই ঋণ শোধ করতে ৫ বছরের গ্রেস পিরিয়ডসহ ৩০ বছর সময় পাবে বাংলাদেশ। এ ঋণের অপরিশোধিত অর্থের ওপর বার্ষিক ০.৭৫ শতাংশ হারে সার্ভিস চার্জ এবং ১.২৫ শতাংশ হারে সুদ প্রদান করতে হবে।

দেশের কর্মক্ষম জনগোষ্ঠীর জন্য পর্যাপ্ত ও মানসম্পন্ন কর্মসংস্থানের সুযোগ এবং পরিবেশ তৈরিসহ সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বিভাগ ও সংস্থার সংশ্লিষ্টতায় সহায়ক কিছু নীতিকৌশল/ বিধিবিধান সংস্কার ও আধুনিকায়নের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে সরকার। সরকারের ওই উদ্যোগ এবং প্রস্তাবিত সংস্কার পরিকল্পনা বাস্তবায়নকল্পে বিশ্বব্যাংক ২০১৮-১৯ থেকে তিন অর্থবছরে মোট ৭৫০ মিলিয়ন বা ৭৫ কোটি মার্কিন ডলারের ডেভেলপমেন্ট পলিসি ক্রেডিট (ডিপিসি) ঋণসহায়তা প্রদানে সম্মত হয়েছে।

এই ডিপিসির অংশ হিসেবে বিশ্বব্যাংক ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ২৫০ মিলিয়ন বা ২৫ কোটি মার্কিন ডলার ঋণসহায়তা প্রদান করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় ডেপিসি-২ এর আওতায় ২০১৯-২০ অর্থবছরে ২৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বাজেট সহায়তা দিতে সম্মত হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, জব ডেভেলপমেন্ট পলিসি ক্রেডিটের আওতায় বিদ্যমান কতিপয় আইন-বিধি সংশোধন ও হালনাগাদকরণসহ Business Process Reengineering করা হবে। এর মাধ্যমে ডুয়িং বিজনেস সূচকে বাংলাদেশের অবস্থার উন্নয়ন ঘটবে এবং নতুন বিনিয়োগ আকর্ষণ সহজতর হবে। ফলে নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করবে।

হাড় ভালো রাখা আমাদের সুস্থতার জন্য অন্যতম জরুরি বিষয়। এটি আমাদের শরীরকে বাহ্যিক সবরক আঘাত থেকে রক্ষা করে। হাড় শক্ত থাকা খুব গুরুত্বপূর্ণ। নমনীয় পেশী এবং শক্ত হাড় উভয়ই শারীরিকভাবে ফিট হওয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

অনেক পুষ্টি আমাদের হাড়কে সুস্থ রাখতে সহায়তা করে। এগেুলোর মধ্যে ভিটামিন ডি এবং ক্যালসিয়াম অন্যতম। পেশী সংকোচন, ওসাইটি অ্যাক্টিভেশন, শক্তিশালী হাড় এবং দাঁত ভালো রাখার জন্য ক্যালসিয়াম প্রয়োজনীয়। অন্যদিকে ভিটামিন ডি দেহে ক্যালসিয়াম শোষণে সহায়তা করে। এছাড়া ভিটামিন কে, ভিটামিন সি, ম্যাগনেসিয়াম এবং ফসফরাস হাড়ের স্বাস্থ্যের জন্য প্রয়োজনীয় অন্যান্য কিছু পুষ্টি উপাদান। জেনে নিন কোন খাবারগুলো হাড়ের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো-

সয়াবিন
প্রোটিন এবং ক্যালসিয়ামের উৎস হওয়ায় সয়াবিন হলো হাড়-বান্ধব খাবার। কলম্বিয়ার মিসৌরি ইউনিভার্সিটির গবেষকদের করা একটি সমীক্ষা থেকে জানা গেছে যে, সয়া-ভিত্তিক পণ্য খাওয়া পোস্টম্যানোপজাল নারীদের মধ্যে হাড়কে মজবুত করতে পারে।

সবুজ শাক-সবজি
সবুজ শাক-সবজি এমন একটি জরুরি খাবার যা আপনাকে অবশ্যই ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। ব্রোকলি এবং পালং শাক জাতীয় শাক-সবজি বিভিন্ন ধরণের স্বাস্থ্যকর পুষ্টি দ্বারা ভরা থাকে যা কেবল আপনার হাড়ের স্বাস্থ্যের জন্যই ভালো নয়, দূরে রাখে নানারকম অসুখও।

কুমড়ো বীজ
কুমড়োর বীজ ম্যাগনেসিয়ামের একটি ভালো উৎস যা হাড় গঠনে সহায়তা করে। ম্যাগনেসিয়াম বেশি পরিমাণ গ্রহণ করলে তা হাড়ের ঘনত্ব বাড়ায় এবং অস্টিওপরোসিসের ঝুঁকি হ্রাস করে। এতে স্বাস্থ্যকর চর্বিও রয়েছে যা প্রদাহ হ্রাস করে এবং হাড়ের শক্তি বজায় রাখে।

সার্ডিন
সার্ডিন একটি সামুদ্রিক মাছ। এটি ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ডি, ভিটামিন বি ১২ এবং হাড়-বিল্ডিং খনিজ যেমন ফসফরাস এবং জিংকের সমৃদ্ধ উৎস।

যেসব খাবার এড়িয়ে চলবেন:

অতিরিক্ত লবণযুক্ত খাবার
উচ্চ সোডিয়ামযুক্ত খাবার উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলতে পারে এবং এটি আপনার হাড়ের পক্ষেও ভালো নয়। সোডিয়াম দেহে ক্যালসিয়াম ভারসাম্যের পরিমাণকে প্রভাবিত করে। তাই খাবার খাওয়ার সময় খেয়াল রাখুন, অতিরিক্ত লবণ যেন পাতে না থাকে।

ক্যাফেইন
ক্যাফেইন পান করার পরে আপনি শক্তিশালী বোধ করতে পারেন তবে কিছুক্ষণ পরে অনুভূতিটি চলে যায়। দেখা গেছে যে ব্যক্তি প্রতিদিন ৩০০ মিলিগ্রামেরও বেশি কফি পান করেন তারা হাড়ের ক্ষয়ে ভোগেন।

কোমল পানীয়
কোমল পানীয়তে চিনি এবং ফসফরাসের পরিমাণ বেশি, যা আপনার দাঁত এবং হাড় উভয়েরই ক্ষতি করতে পারে। যতটা সম্ভব এই ধরনের পানীয় থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করুন। ২০০৬ সালের এক গবেষণায় দেখা গেছে, কোমল পানীয় বয়স্ক নারীদের মধ্যে হাড়ের ক্ষয় রোগের কারণ হতে পারে।

 

চিত্রদেশ//এস//

আরও

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button