পজিটিভ সংবাদ

পদ্মাসেতুর ২৮৫০ মিটার দৃশ্যমান

স্টাফ রিপোর্টার:
পদ্মাসেতুর ২১ ও ২২ নম্বর পিলারে স্থায়ীভাবে ১৯তম স্প্যান বসানোর মাধ্যমে দৃশ্যমান হয়েছে সেতুর ২ হাজার ৮৫০ মিটার (২.৮৫ কিলোমিটার)।

আজ বুধবার দুপুর ১২টা ৪৫ মিনিটে লৌহজংয়ের জাজিরা প্রান্তে ২১ ও ২২ নম্বর খুঁটিতে বসানো হয়েছে এই স্প্যান।

জানা যায়, চলতি মাসে বসানোর কথা রয়েছে আরও একটি স্প্যান। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার লম্বা সেতুতে স্প্যান বসাতে হবে মোট ৪১টি।

এর মধ্যে চীন থেকে সেতু এলাকায় ৩৩টি স্প্যান এসেছে। আর মূল সেতুর ৪২টি পিলারের মধ্যে ৩৫টির কাজ শেষ। বাকি পিলারগুলোর ওপরের অংশের কাজ চলছে। সেতুর জাজিরা প্রান্তে রোডওয়ে স্ল্যাবের ১০৯টি বসে গেছে।

নির্ধারিত সময়ে সেতুর কাজ শেষ করতে দিনে অন্তত ৮টি করে রোডওয়ে স্ল্যাব বসাতে হবে।

পদ্মাসেতুর প্রকৌশলী হুমায়ুন কবির জানান, লৌহজংয়ের জাজিরা প্রান্তে ২১ ও ২২ নম্বর খুঁটিতে বসানো হয়েছে সেতুর ১৯তম স্প্যান। চলতি বছরে এ পর্যন্ত পদ্মা সেতুতে ১৩টি স্প্যান বসেছে।

এ ছাড়া ২৮ অথবা ২৯ ডিসেম্বর ‘৩ এফ’ নম্বরের ২০তম স্প্যানটি মাওয়া প্রান্তের ১৮ ও ১৯ নম্বর খুঁটিতে বসার কথা রয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে চলতি বছরেই সেতুর ১৪টি স্প্যান দৃশ্যমান হতে যাচ্ছে।

প্রকল্পের দায়িত্বশীল প্রকৌশলীরা জানান, ২০১৭ সালে একটি, ২০১৮ সালে ৫টি এবং ২০১৯ সালে এ পর্যন্ত ১৩টি স্প্যান বসেছে। এ মাসেই আরও একটি স্প্যান বসতে যাচ্ছে।

পুরো সেতুতে ২ হাজার ৯৩১টি রোডওয়ে স্ল্যাব বসানো হবে। আর রেলওয়ে স্ল্যাব বসানো হবে ২ হাজার ৯৫৯টি। পদ্মাসেতুতে ৪২টি পিলারের ওপর বসবে ৪১টি স্প্যান। ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে পদ্মাসেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হয়। মূল সেতু নির্মাণের জন্য কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি) ও নদীশাসনের কাজ করছে দেশটির আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন।

 

চিত্রদেশ //এস//

আরও

Leave a Reply

Back to top button