আয়োজন

ঢাকায় ৩ দিনব্যপী বস্ত্রমেলার উদ্বোধন

স্টাফ রিপোর্টার:
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতীয় বস্ত্র দিবস ২০১৯ ও বস্ত্রমেলার উদ্বোধন করেছেন। বৃহস্পতিবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এ মেলার উদ্বোধন করেন তিনি। এ মেলা ১১ জানুয়ারি পর্যন্ত চলবে।

জাতীয় বস্ত্র দিবসের এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় হলো- ‘বস্ত্রখাতের বিশ্বায়ন, টেকসই উন্নয়ন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দেশের উন্নয়নে বস্ত্রখাতের গুরুত্ব অপরিসীম। এ জন্য এখাতে প্রণোদনা দিচ্ছে সরকার। জিডিপিতে বস্ত্রখাতের অবদান ১৩ শতাংশ, নারীদের কর্মসংস্থানে এ খাতটি বড় ভূমিকা রাখছে।’

শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলার ওপর গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার। এছাড়া বাণিজ্য সম্প্রসারণে নানামুখী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। দেশকে সার্বিকভাবে উন্নতির দিকে নিয়ে যাওয়ার লক্ষে আমারা কাজ করছি। বস্ত্র খাতের পাশাপাশি কৃষিকেও আধুনিকায়ন করা হচ্ছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘গত ১০ বছরে বাংলাদেশ কি পরিমান এগিয়েছে তা আপনারা সবাই জানেন। আজ আমাদের জিডিপির আকার ২০০৯ এ ছিল ১০২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। আজ তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩০২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে। অপরদিকে আমাদের রপ্তানি আয় সেই বিএনপি সরকারের আমলে ২০০৫-০৬ অর্থ বছরে যা ছিল তার তুলোনায় তিন গুণ বেড়ে ২০১৮-১৯ সালের অর্থবছরে এসে দাঁড়িয়েছে ৪৬.৫৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে।’

তিনি বলেন, ‘আমার দেশের কৃষক, শ্রমিক, সাধারণ মানুষ সবাই উন্নত জীবনযাপন করবে। আমরা যে ডেল্টা প্লান নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি তাতে করে একদিন বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। বিশ্ব দরবারে আমরা মাথা তুলে দাঁড়িয়েছি। আগামী প্রজন্ম যাতে একটি উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ পায় সে লক্ষেই আমরা কাজ করছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘মাথাপিছু আয় তিনগুণ বৃদ্ধি পেয়ে ১,৯০৯ মার্কিন ডলারে উন্নিত হয়েছে। আমাদের জিডিপি ৮.১৫ হারে বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছি। এই প্রবৃদ্ধি যেমন অর্জন করেছি, তার সঙ্গে মূল্যস্ফিতি আমরা ৫ ভাগে নামিয়ে রাখতে সক্ষম হই।’

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীকের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মির্জা আজম ও মন্ত্রণালয়ের সচিব লোকমান হোসেন মিয়া।

বস্ত্রখাতের উন্নয়নে বিশেষ অবদান রাখায় অনুষ্ঠানে ৯টি প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা পদক দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

 

চিত্রদেশ//এস//

 

আরও

Leave a Reply

Back to top button